Sharing is caring!

shibganj pouro drenej pic,26.10.15শিবগঞ্জ থেকে ইমরান আলী \ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভায় প্রয়োজনীয় ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পৌরবাসীর দূর্ভোগ চরমে উঠলেও দেখার যেন কেউ নেই। পৌরসভা অফিস সূত্রে জানা গেছে,  মাত্র ১৩ দশমিক ৬৯ কিলোমিটার পাকা ড্রেন রয়েছে। আরো প্রয়োজন প্রায় ৬১ দশমিক ৩১ কিলোমিটার। বর্তমানে ৪৫ দশমিক ৮০ কিলোমিটার পাকা ড্রেনের জন্য আবেদন করা হলেও এ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা হয়নি। এরপরও নির্মিত ড্রেনগুলোর পানি নিষ্কাষনের ব্যবস্থা না থাকায় বা পাশ্বর্বতী নদী/খাল বা কোন গর্ত পর্যন্ত না থাকায় নির্মিত ড্রেনগুলোও কোন কাজে আসছেনা। শুধু তাই নয়, পানি নিস্কাশনে জন্য প্রয়োজনীয় ড্রেন না থাকা ও নির্মিত ড্রেনগুলো পার্শ্ববর্তী নদী পর্যন্ত না থাকায় চলতি বর্ষায় শিবগঞ্জ পৌর এলাকা জলাশয়ে পরিণত হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে আবাসিক এলাকায় এখনও পানি জমে রয়েছে। সে সাথে এসব ড্রেন পরিষ্কারের কোন উদ্যোগ না থাকায় ড্রেনে পানি দীর্ঘদিন জমে থেকে পচা নর্দমায় পরিণত হয়েছে। এতে করে একদিকে যেমন মশামাছির উপদ্রব্য বাড়ছে, অন্যদিকে তেমনি  দূর্গন্ধে শিবগঞ্জ পৌর এলাকার বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ৫ নং ওয়ার্ডের ঠাকুর ত্রিবর্দী শ্যামল চক্রবতী, শিবগঞ্জ মহিলা ডিগ্রী কলেজ এলাকার ব্যবসায়ী আজিজুল হক, একই এলাকার কলেজ শি¶ক মনিরুল, এনজিও প্রতিনিধি মোমিনুল ইসলামসহ বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বর্তমানে শিবগঞ্জ ২, ৩, ৪ ও ৫নং ওয়ার্ডগুলো ড্রেনগুলো দীর্ঘদিন পরিস্কার না করা ও কোন সংস্কার না করা এবং  নির্মিত ড্রেনগুলো পার্শ্ববর্তী নদী পর্যন্ত না হওয়ায় পানি ড্রেনেই জমে থাকছে। অন্যদিকে ৫ নং ও ৬ নং ওয়ার্ডর সমস্যা সমাধানের জন্য তর্তীপুর ঘাট পর্যন্ত ড্রেনের  প্রয়োজন। জালমাছমারীর কিছু অংশ, চকদৌলতপুর ও সেলিমাবাদ এলাকায় জলবদ্ধতা বন্ধ করতে হলে শহরের পশ্চিমে পাগলা নদী পর্যন্ত ড্রেন করা প্রয়োজন। কিন্তু মনাকষা মোড় হতে মাত্র ২’শ মিটার দূরে দূর্লভপুর ইউনিয়নের এলাকায় হওয়ায় ঐদিকে ড্রেন করার কোন পরিকল্পনা করা যাচ্ছে না এবং শহরের কিছু অংশের পানি নিস্কাশন মরা নদীতে ফেলা যায় তবে মরানদীর জমিগুলো ব্যক্তিগত হওয়ায় জমির মালিক তা করতে দিচ্ছে না। এব্যাপারে শিবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র (ভারপ্রাপ্ত) ইমানী আলী বলেন, শিবগঞ্জ পৌরসভার ড্রেনেজ ব্যবস্থা খুবই খারাপ যা জনদূর্ভোগের সৃষ্টি করেছে। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে ড্রেন তৈরী করা সম্ভব হচেছ না। পৌরবাসীর দূর্ভোগ কমাতে তিনি সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *