Sharing is caring!

প্রেস বিজ্ঞপ্তি \ আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে সোমবার রাজশাহী সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্মের কেড়ে নেওয়া বাপ-দাদার জমিতে বসবাসরত আদিবাসী-বাঙালিদের উপর পুলিশের গুলিতে সাঁওতাল হত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও বর্বর নির্যাতনের বিচার এবং ক্ষতিপূরনের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। আদিবাসী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক গনেশ মার্ডি, রাজশাহী মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক আন্দ্রিয়াস বিশ্বাস, রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুশেন কুমার শ্যাম দুুয়ার, আদিবাসী যুব পরিষদ রাজশাহী জেলার যুগ্ম-আহবায়ক উপেন রবিদাস, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক শ্রীকান্ত তীর্কি, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক আপেল মুন্ডা, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রতিশ টপ্য, অর্থ সম্পাদক অনিল রবিদাস, দপ্তর সম্পাদক পলাশ পাহান, প্রকাশনা সম্পাদক বাসুদেব মাহাতো, সদস্য মলি বিশ্বাস, রাজশাহী কলেজ শাখার সাবেক যুগ্মআহবায়ক দুলাল চন্দ্র মাহাতো। এছাড়া সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান আলী বরজাহান, বাংলাদেশ রবিদাস উন্নয়ন পরিষদ রাজশাহী সভাপতি রঘুনাথ রবিদাস, জনউদ্যোগ রাজশাহীর ফেলো জুলফিকার আহমেদ গোলাপ, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক তামিম সিরাজী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট রাজশাহী জেলা সভাপতি সোহরাব হোসেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, গাইবান্ধায় আদিবাসী সাঁতালদের হত্যার এক বছর অতিবাহিত হলেও তিনজন সাঁওতাল রমেশ টুডু, শ্যামল হেমব্রম, মঙ্গল মার্ডি হত্যাকান্ডের বিচার হয়নি। এখনো তারা তাদের বাপ-দাদার জমি ফেরত পায় নি। এখনও বাগদাফার্ম মিল কর্তৃপক্ষ ও হত্যাকারীরা আবারও সন্ত্রাসী হামলার হুমকি ও প্রতিনিয়ত ভয়-ভীতি দেখাচ্ছে। বক্তারা বলেন, হত্যাকারীরা সরকারী লোক হওয়ায় রাষ্ট্র তাদের বিচার করতে নানা তালবাহানা করছে। আদিবাসীদের বিচারের আশ্বাস দিলেও সরকারের ভূমিকাকে সন্দেহের চোখে দেখছে। এখনও ক্ষতিগ্রস্ত’দের পুর্নবাসনের কোন উদ্যোগ গ্রহন করেনি। আদিবাসীরা এই মানববন্ধন থেকে সাহেবগঞ্জ বাগদাফার্ম কর্তৃক কেড়ে নেওয়া বাপ-দাদার ১৮৪২ একর জমি ফেরতের জোর দাবী জানান।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *