Sharing is caring!

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা

স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিতে সকলকেই

দায়িত্ব নিতে হবে: বেগম কবিতা খানম

♦ স্টাফ রিপোর্টার

স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দিতে সকলকেই সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম। বুধবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জে আগামী ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য সদর উপজেলা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। উপস্থিত দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন চাই ভোটগ্রহণে কোনরকম যাতে বিশৃক্সখলা না হয়। নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করতে হবে ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারকে। প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রে নিরাপত্তার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারের। আপনার একটি সিধান্ত ভোট কেন্দ্রে বিশৃক্সখলা সৃষ্টি করতে পারে, এমনকি অন্য একটি সিধান্ত শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে পারে। সুতরাং আপনাদের দায়িত্ব অন্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের এন.এম.খান অডিটোরিয়ামে কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি জানান, একটি ভোটকেন্দ্রের শুধুমাত্র প্রিজাইডিং অফিসার ও পুলিশ সদস্যদের টিম লিডার ছাড়া আর কেউ মোবাইল ব্যবহার করতে পারবে না। প্রিজাইডিং অফিসারের কাজকে সহজ করতে আপনাদের পাশে আছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ, আনসারসহ অনেকেই। সবকিছুই আপনাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। এর ব্যবহার আপনাকে জানতে হবে। সকলকে সমš^য় করে কাজ না করতে পারলে আপনার একটি সিদ্ধান্ত ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ কার্যক্রম ব্যর্থ হবে, ভোটারদের ভোট প্রদান প্রক্রিয়া ব্যর্থ হবে। প্রিজাইডিং অফিসারের দায়িত্বকে মহান ও পবিত্র দায়িত্ব উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রত্যেকটি প্রার্থীই সমান। সকলকে সমান সুযোগ দিতে হবে। কে কোন দলের, কে কোথা থেকে এসেছে এটি আপনার দেখার বিষয় না। মনে রাখবেন, কোন প্রার্থীকে অতিরিক্ত সুযোগ দেয়া বা কোন প্রলোভনে পড়ে বাড়তি সুবিধা দিলে আপনি প্রশ্নবিদ্ধ হবেন। এমনকি পুরো নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রশ্নবিদ্ধ হবে। তাই আমরা চাই আপনাদের মাধ্যমে একটি সুষ্ঠ, স্বচ্ছ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে। কোন প্রার্থীর আতিথিয়তা গ্রহণ না করার আহব্বান জানিয়ে প্রিজাইডিং অফিসারদের উদ্দেশ্যে বেগম কবিতা খানম বলেন, কারও থেকে সুবিধা গ্রহণ করলে তার বিভিন্ন অনুরোধ রাখতে হয়। তাই সেদিকে না গিয়ে রাষ্ট্রের কাজে পবিত্র এই দায়িত্ব পালনে সততার সাথে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন করবেন বলে আমি আশা করি। জেলা নির্বাচন অফিসের আয়োজনে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় জেলা প্রশাসক এ.জেড.এম নূরুল হকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো. নুরুজ্জামান তালুকদার, রাজশাহী অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার টি.এম. মোজাহিদুল ইসলাম বিপিএম-পিপিএম, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সদর উপজেলা নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান। সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার কাইসার মোহাম্মদের সঞ্চালনায় কর্মশালার সমপনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. শংকর কুমার কুন্ডু, সদর থানার অফিসার ইন-চার্জ জিয়াউর রহমান পিপিএমসহ জেলা নির্বাচন অফিসের কর্মকতা, নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসারসহ অন্যান্যরা। বাংলাদেশ নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো. নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ভোটগ্রহণে কেউ আপনাদের কাজে বাধা দিলে তাকে আইন-শৃক্সখলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে তুলে দিবেন। প্রিজাইডিং অফিসারদের সহযোগিতায় পারে সুষ্ঠ ও শান্তপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন উপহার দিতে। আগামীকালই (বৃহস্পতিবার) দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচনী কেন্দ্র ঘুরে আসার আহব্বান জানিয়ে রাজশাহী অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম বলেন, চরাঞ্চলের বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে পানি থাকতে পারে। সেটি আপনারা পরিদর্শন করে জেলা রিটানিং কর্মকর্তাকে জানালে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পারবো। উল্লেখ্য, দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ১’শ ৫৭ প্রিজাইডিং অফিসার ও ৯’শ ৯৫ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার অংশগ্রহণ করেন।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *