Sharing is caring!

২০২০ সালের মধ্যেই দেশের আরো ৬ লাখ

মানুষ বিদ্যুতের আওতায় আসছে

টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার দেশের উন্নয়নের জন্য সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, একের পর এক ফ্লাইওভার, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে টানেল নির্মাণ, রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ বহু প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। কিছু প্রকল্পের কাজ শেষ হয়ে উদ্বোধনের অপেক্ষায় আছে। তবে এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি নজরদারির মধ্যে রয়েছে দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়া। আর এরই অংশ হিসেবে ২০১৬ সালে হাতে নেওয়া একটি প্রকল্পের অধীনে ২০২০ সালের জুন মাসের মধ্যেই দেশের আরো ৬ লাখ মানুষের কাছে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে যাচ্ছে সরকার।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৬ সালে ‘পল্লী বিদ্যুতায়ন সম্প্রসারণের মাধ্যমে ১৫ লাখ গ্রাহক সংযোগ’ শীর্ষক একটি প্রকল্প নিয়ে ১৫ লাখ গ্রাহকের ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাস থেকে শুরু হওয়া ওই প্রকল্পে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসেই ১৫ লাখ গ্রাহকের ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়া হয়, খরচ হয় ৬ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা।

এখন এই প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়িয়ে আরও সাড়ে ৪ লাখ গ্রাহকের ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়া হবে। প্রকল্পটির সংশোধিত নাম হচ্ছে ‘পল্লী বিদ্যুতায়ন সম্প্রসারণের মাধ্যমে ১৯ লাখ ৫০ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ’। এটি ৮ বিভাগের ৬১টি জেলার ৮০টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ভৌগোলিক এলাকায় বাস্তবায়ন হবে। সংশোধিত প্রকল্পে বৈদ্যুতিক লাইন ৪৪ হাজার কিলোমিটার থেকে বাড়িয়ে ৫৯ হাজার কিলোমিটার করা হচ্ছে। এর মেয়াদ বাড়ছে ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত, ব্যয় বাড়ছে ১ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা।

সরকারের একটি সূত্র জানায়, মহাপরিকল্পনা মোতাবেক ২০৪১ সালে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রায় কাজ চলছে। সেই অনুসারে ২০২১ সালে ২৪ হাজার মেগাওয়াট, ২০৩০ সালে ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সালে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। ‘রূপকল্প-২০২১’ অনুযায়ী যেভাবে কাজ চলছে, তাতে ক্রমেই লক্ষ্যমাত্রার দিকে এগিয়ে চলছে বিদ্যুৎ খাত।

এই বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের যুগ্ম-প্রধান (বিদ্যুৎ উইং) কাজী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘চলতি প্রকল্পের সময়-ব্যয় বাড়িয়ে আরও সাড়ে চার লাখ ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আলাদা প্রকল্প নিলে বেশি খরচ হতো। আশা করা যাচ্ছে, এই উদ্যোগে ব্যয় ও সময় সাশ্রয় হবে। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিতে ২০১৬ সালে একটা মাস্টারপ্ল্যান করেছিলাম। আমরা ২০২১ সালে সবার ঘরে বিদ্যুৎ দিতে চাই। এটা টার্গেট করেই এগিয়ে যাচ্ছি আমরা।’

বর্তমান সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় অচিরেই দেশের শতভাগ মানুষ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হবে এমনটাই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *