Sharing is caring!

chapai pic 13 চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি \ চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকায় হঠাৎ দেখা দিয়েছে ডায়ারিয়ার প্রকোপ। সময় গড়ার সাথে সাথে পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে। মঙ্গলবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক আঞ্জুয়ারা খাতুন জানান, গত বৃহস্পতিবার থেকে মঙ্গলবার দুপর সোয়া একটা পর্যন্ত ৬ দিনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ১৬৮ জন ডায়ারিয়া রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে সোমবার ৫৬ এবং মঙ্গলবার দুপর সোয়া একটা পর্যন্ত ৪৬ জন ডায়ারিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হবার পরও রোগী ভর্তি অব্যহত আছে। মঙ্গলবারও সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বিছানায় জায়গা না পেয়ে ওয়ার্ডের বাইরে ও প্রায় সমস্ত হাসপাতালের বারান্দায় রোগীরা চিকিৎসা নিচ্ছেন। এখন পর্যন্ত হাসপাতালের পাশের পৌর ১৫নং ওয়ার্ডের ঘনবসতিপূর্ন মসজিদপাড়ার রোগীর সংখ্যাই বেশি। হাসপাতালে চিকিৎসক সংকটের অভিযোগ করেছেন ডায়রিয়া আক্রান্তরা। হাসপাতাল থেকে কলেরা স্যালাইনও সরবরাহ করা হচ্ছে না। হাসপাতালে ভর্তি মসজিদপাড়ার রোগীরা জানান, পৌরসভার সরবরাহকৃত পানি পান করেই তারা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা করছেন। পৌরসভার সরবরাহকৃত দূষিত পানি থেকে ডায়রিয়া ছড়াতে পারে বলে ধারনা করছেন চাঁপাইনবাবগchapai pic 14ঞ্জের সিভিল সার্জন ও হাসপাতালের তত্ত¡াবধায়ক প্রধান মো. আবুল কালাম আজাদ। মঙ্গলবার দুপর পৌনে দু’টায় তিনি জানান, এ ব্যাপারে ¯^াস্থ্য বিভাগীয় পরিচালককে অবহিত করা হয়েছে এবং বুধবার থেকে আই.ভি স্যালাইন সরবরাহ করা যাবে বলে তাঁরা আশা করছেন। এ ব্যাপারে পৌরসভাকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা বাড়ানোর জন্য বলা হয়েছে। এ জন্য মাইকিং করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। জরুরী মেডিক্যাল টিম গঠনের প্রয়োজনীয়তা এখনও নেই বলেই তাঁর দাবী। তিনি বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই আছে। সরবরাহকৃত দূষিত পানি থেকে ডায়রিয়া ছড়াচ্ছে বলে তাঁরও ধারনা। তবে শহরের বাইরে অনান্য উপজেলার বিভিন্ন এলাকার রোগীও আসছে। এ ব্যাপারে পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র সাইদুর রহমান জানান, সোমবার পৌর পরিষদের সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। পৌরসভার চিকিৎসক অলিউল ইসলামকে ঘটনাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। পানি সরবরাহ বিভাগকেও ডায়রিয়া প্রতিরোধে সতর্ককামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ দিকে অনেক রোগীই বাড়ীতে বা অনান্য ক্লিনিকে চিকিৎসা নেয়ায় রোগীর সঠিক সংখ্যা নির্নয় করা যাচ্ছেনা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অবিলম্বে জরুরী ভিত্তি¡তে ব্যবস্থা না নিলে সংকট আরও বাড়তে পারে এমনকি মহামারী রুপ নিতে পারে বলে ধারনা করছেন স্থানীয়রা।

আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *